আপনার শরীরে করোনা ভাইরাস আছে কি না এবং করোনা ভাইরাস থেকে আপনি কতোটা নিরাপদ তা জেনে নিন অনলাইনে ওয়েবসাইট থেকে

করোনাভাইরাস ১৯৬০-এর দশকে প্রথম আবিষ্কৃত হয়। প্রথমদিকে মুরগির মধ্যে সংক্রামক ব্রঙ্কাইটিস ভাইরাস হিসেবে এটি প্রথম দেখা যায়। পরে সাধারণ সর্দি-হাঁচি-কাশিতে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে এরকম দুই ধরনের ভাইরাস পাওয়া যায়। মানুষের মধ্যে পাওয়া ভাইরাস দুটি ‘মনুষ্য করোনাভাইরাস ২২৯ই’ এবং ‘মনুষ্য করোনাভাইরাস ওসি৪৩’ নামে নামকরণ করা হয়। এরপর থেকে বিভিন্ন সময় ভাইরাসটির আরো বেশ কিছু প্রজাতি পাওয়া যায় যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ২০০৩ সালে ‘এসএআরএস-সিওভি’, ২০০৪ সালে ‘এইচসিওভি এনএল৬৩’, ২০০৫ সালে ‘এইচকেইউ১’, ২০১২ সালে ‘এমইআরএস-সিওভি’ এবং সর্বশেষ ২০১৯ সাল চীনে এসএআরএস-সিওভি-২’ পাওয়া যায়(যা বর্তমানে সাধারণত নোভেল করোনাভাইরাস নামেই পরিচিত। এগুলোর মধ্যে অধিকাংশ ভাইরাসের ফলে শ্বাসকষ্টের গুরুতর সংক্রমণ দেখা দেয়।



রোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির প্রাথমিক লক্ষণ:
  1. জ্বর
  2. অবসাদ
  3. শুষ্ক কাশি
  4. বমি হওয়া
  5. শ্বাসকষ্ট
  6. গলা ব্যাথা
  7. অঙ্গ বিকল হওয়া
  8. মাথা ব্যাথা
  9. মাথা ব্যাথা
  10. পেটের সমস্যা 
কিছু রোগীর ক্ষেত্রে উপরোক্ত সকল উপসর্গ দেখা গেলেও জ্বর থাকেনা।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব (২০১৯-২০২০) সম্পাদনা

মূল নিবন্ধসমূহ: ২০১৯ সালের করোনাভাইরাসঘটিত ব্যাধির প্রাদুর্ভাব (২০১৯-২০২০) এবং দেশ অনুযায়ী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব (২০১৯-২০২০)

২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে করোনাভাইরাসের একটি প্রজাতির সংক্রামণ দেখা দেয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ভাইরাসটিকে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ‘২০১৯-এনসিওভি’ নামকরণ করে। ২০২০ সালের ২৭ মার্চ পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী বিশ্বের ১৯০টিরও বেশি দেশ ও অধীনস্থ অঞ্চলে ৫,৩২,১০০ (পাঁচ লক্ষ বত্রিশ হাজার একশত)-এরও বেশি ব্যক্তি করোনাভাইরাস রোগ ২০১৯-এ আক্রান্ত হয়েছেন বলে সংবাদ প্রতিবেদনে প্রকাশ পেয়েছে। এদের মধ্যে ২৪ হাজার জনের বেশী ব্যক্তির মৃত্যু ঘটেছে এবং ১ লাখ ২৪ হাজারের বেশি রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছে।

উহানে দেখা দেওয়া ভাইরাস প্রজাতিটি ‘এসএআরএস-সিওভি’ প্রজাতির সাথে ~৭০% জিনগত মিল পাওয়া যায়।অনেকেই অনুমান করছেন নতুন এ প্রজাতিটি সাপ থেকে এসেছে যদিও অনেক গবেষক এ মতের বিরোধীতা করেন।

কোভিড-১৯ যা করোনা ভাইরাস নামে পরিচিত – সাম্প্রতিক সময়ে গণমাধ্যমের শিরোনামে প্রাধান্য বিস্তার করেছে। এশিয়ার বিভিন্ন অংশ এবং এর বাইরেও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস। সাধারণ সতর্কতা অবলম্বন করে আপনি এই ভাইরাসটির সংক্রমণ ও বিস্তারের ঝুঁকি কমিয়ে আনতে পারেন।
শ্বাসতন্ত্রের অন্যান্য অসুস্থতার মতো এই ভাইরাসের ক্ষেত্রেও সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা এবং জ্বরসহ হালকা লক্ষণ দেখা দিতে পারে । কিছু মানুষের জন্য এই ভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মক হতে পারে। এর ফলে নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট এবং অর্গান বিপর্যয়ের মতো ঘটনাও ঘটতে পারে। তবে খুব কম ক্ষেত্রেই এই রোগ মারাত্মক হয়। এই ভাইরাস সংক্রমণের ফলে বয়স্ক ও আগে থেকে অসুস্থ ব্যক্তিদের মারাত্মকভাবে অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি বেশি।

করোনা ভাইরাসসহ অন্যান্য রোগের বিস্তার সীমিত পর্যায়ে রাখতে মেডিক্যাল মাস্ক সাহায্য করে। তবে এটার ব্যবহারই এককভাবে সংক্রমণ হ্রাস করতে যথেষ্ঠ নয়। নিয়মিত হাত ধোয়া এবং সম্ভাব্য সংক্রমিত ব্যক্তির সাথে মেলামেশা না করা এই ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কমানোর সর্বোত্তম উপায়।

“এই করোনাভাইরাসটি ভয়াবহ গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। এটি প্রতিরোধ করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করা অত্যন্ত জরুরি। শিশুদের উপর এই ভাইরাসের প্রভাব বা এতে কতজন আক্রান্ত হতে পারে- সে সম্পর্কে আমরা এখনও বেশি কিছু জানি না। কিন্তু নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও প্রতিরোধ এক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হয়। সময় আমাদের সাথে নেই।”

উপর থেকে জানতে পারলেন যে, কতোটা ভয়ানক এই করোনা ভাইরাস? আপনার মধ্যে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ দেখা দিলে সাথে সাথে হাসপাতালে যান।

 আজকে আমরা দেখব আমাদের মধ্যে করোনা ভাইরাস আছে কিনা, তাও একটি ওয়েব সাইট থেকে।

প্রথমে নিচের লিংকে যানঃ
https://corona.lazyfrog.in 

এবার স্ক্রিনশট লক্ষ করুন।
এবং যা যা প্রশ্ন করছে তার সঠিক জবাব দিন।
১!

২!

৩!

৪!

৫!

৬!

৭!

৮!

৯!

১০!
এবার আসুন আমাদের দেশী মানে বাংলাদেশী সাইট থেকে একবার পরীক্ষা করিঃ
নিচের লিংকে যানঃ
http://eshosikhi.com/corona/
১১!

১২!

আশা করি বোঝাতে পেরেছি।
এভাবেই আপনি প্রাথমিক ধারনা পেতে পারবেন যে আপনার ভেতর ভাইরাস আছে কি না। আপনি করোনা ভাইরাস থেকে সম্পূর্ণ নিরাপদ কিনা তা জানতে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। 
ধন্যবাদ।

নিরাপদ থাকুন, নিরাপদ রাখুন।

#StayHome #StaySafe
 
 

Post a Comment

0 Comments