চুলের জন্য গরম ভাপ দিবেন যেভাবে

চুল পড়া বা মাথায় নতুন চুল না হওয়া খুব সাধারণ একটি সমস্যা। তবে এ সমস্যা সমাধানে স্টিম বা গরম ভাপ অনেকটাই উপকারী। তবে সেখানেও কথা আছে। সঠিক নিয়মে না করলে ঘটবে হিতে বিপরীত। ভাপ বা স্টিমের প্রধান কাজ হলো মাথায় নতুন চুল তৈরি করা। তবে চুল পড়ে যাওয়া স্থানে স্টিম দিলেই হবে না, তৈরি করতে হবে সালফার। স্টিমের একটি অন্যতম উপাদান এটি। কিছু সঠিক নিয়ম মেনে তবেই স্টিম দিতে হবে, জানালেন হার্বস আয়ুর্বেদিক স্কিন কেয়ার ক্লিনিকের আয়ুর্বেদিক রূপবিশেষজ্ঞ আফরিন মৌসুমী।



কী নিয়মঃস্টিম দেওয়ার আগে মাথার ত্বক সম্পূর্ণভাবে পরিষ্কার, অর্থাৎ শ্যাম্পু করে নিতে হবে। ত্বকে কোনো ময়লা বা তেল থাকবে না।
প্রাকৃতিক সালফার–সমৃদ্ধ পেঁয়াজ ও রসুন সমপরিমাণে পানি ছাড়া ঘন তরল করে নিতে হবে। পরিষ্কার ত্বকে মিশ্রণটি লাগানোর পর স্টিম নেওয়া যাবে। এতে ত্বকের গ্রন্থিগুলো খুলে যায় এবং পেঁয়াজ ও রসুনের প্রাকৃতিক সালফার ত্বকের দ্বিতীয় স্তর পর্যন্ত গিয়ে নতুন চুল তৈরিতে সাহায্য করে। স্টিম দেওয়ার পর ভালোমতো তেল মালিশ করতে হবে।

যাঁদের জন্যঃ
মাথার ত্বক খুব বেশি শুষ্ক হলে, খুশকি বা চামড়া উঠলে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখার জন্য স্টিম বেশ উপকারী। চুলে গরম ধোঁয়ার আবেশ দেওয়ার আগে তেল মালিশ করে নেবেন।

যাঁরা দেবেন নাঃ
যাঁদের মাথার ত্বক তৈলাক্ত, তাঁরা কখনোই স্টিম ব্যবহার করবেন না। কারণ, তৈলাক্ত ত্বকে মাথায় ঘাম হয় বেশি, আর্দ্রতাও থাকে বেশি। এ সময়ে স্টিম ব্যবহার করলে অধিক আর্দ্রতার কারণে চুলের গোড়া নরম হয়ে চুলে পড়ে যায়।

মিশ্র ত্বকে স্টিমঃ
যাঁদের চুল শীতকালে তৈলাক্ত হয় এবং গরমে শুষ্ক থাকে, তাঁরা ত্বক তৈলাক্ত থাকা অবস্থায় স্টিম ব্যবহার করতে পারবেন না। বছরের একটা সময় হঠাৎ করে মাথার ত্বক তৈলাক্ত হওয়ার কারণ চুলে সঠিকভাবে শ্যাম্পু না করা।

যে সময়ে স্টিম দেবেন নাঃ
স্টিম ব্যবহারের সঠিক সময় হলো গরম ও শীতকাল। অনেকেই সারা বছর স্টিম ব্যবহার করেন, যা একেবারেই ঠিক নয়। কারণ, বর্ষাকালে চুল এমনি ভেজা থাকে, তাই এ সময়ে স্টিম ব্যবহারে চুল পড়ে যায়।

গরম ভাপ নেওয়ার নিয়মঃ
এখন অনেকেই যন্ত্রের মাধ্যমে চুলে স্টিম দেন। সবচেয়ে ভালো উপায় হলো, চুলায় পানি ফুটিয়ে নিন। সেই পানিতে এবার তোয়ালে ভিজিয়ে নিংড়ে মাথায় পেঁচিয়ে রাখুন।

স্টিমের উপকারিতাঃ
স্টিমের কাজ হচ্ছে মাথার ত্বকের গ্রন্থিগুলোকে খুলে দেওয়া ও আর্দ্রতা ধরে রাখা। হরমোনের সমস্যার জন্য, নতুন মায়েদের বেশি ওষুধ খাওয়ার জন্য চুল পড়ে গেলে এবং অ্যালোপেসিয়া বা মাথার ত্বকে ছত্রাকজনিত সংক্রমণ (ফাঙাল ইনফেকশন) হলে স্টিম দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে। এ ছাড়া ত্বক খুব শুষ্ক হয়ে গেলে নতুন চুল জম্ম নেয় না। আর্দ্রতা বজায় রাখতে স্টিম বেশ উপকারী।

ভিটামিন ক্যাপসুল ব্যবহারের পর স্টিমঃ
ভিটামিন ক্যাপসুল ব্যবহারের পর স্টিম দিলে চুলের গোড়া অনেকটাই মজবুত হয়। এতে চুল শুষ্ক ও চুলের ক্ষতি হয় না। সে ক্ষেত্রে ভিটামিন ই ক্যাপসুল ও সি ক্যাপসুল একসঙ্গে মিশিয়ে মাথার ত্বকে ব্যবহার করে স্টিম দিলে চুল তার সঠিক পুষ্টি পাবে।



Post a Comment

0 Comments